Home Blog Page 5

রিং আইডি অ্যাপ এর রিংবিট ট্রান্সফার করার নিয়ম

0
Ringid Ringbit

আসসালামু আলাইকুম।
আশাকরি সবাই ভাল আছেন?
আছকে আমি আপনাদের মাঝে হাজির হয়েছি রিং আইডি অ্যাপ এর রিংবিট ট্রান্সফার করার বিস্তারিত নিয়মকানুন নিয়ে। তো আর কথা না বাড়িয়ে চলুন শুরু করা যাক।
এর আগে রিং আইডি ক্যাশ আউট করার জন্য তাদের কাছে একটি Screen shot জমা দিতে হয়েছিলো ঠিক সেই রকম এবারো কাজ করতে হবে।
আপনি রিং আইডি থেকে কি ভাবে ইনকাম করছেন কি ভাবে এর প্রচার করছেন আপনার বন্ধদের মাঝে যেমনঃ
Facebook messenger এর মাধ্যমে বিভিন্ন অনলাইন সাইট এর মাধ্যমে পোস্ট করে, Youtube এ ভিডিও করে ইত্যাদি এর মাধ্যমে প্রচার করে ইনকাম করছেন এবং রিং বিট সংরক্ষণ করছেন সেই প্রচার মাধ্যম টির তার একটি Screen shot বা পোস্ট এর লিংক বা Youtube ভিডিও এর লিংক অথবা ভিডিও এর Screen shot তাদের কাছে জমা দিতে হবে এবং আপনার একাউন্ট নাম্বার সেই প্রচার মাধ্যমে থাকতে হবে ঠিক নিছের Screen shot এর মত।
Ringid Ringbit

তা হলেই রিং বিট Transfer সিস্টেম টি চালু করে দিবে।
প্রথমে রিং আইডি অ্যাপটি আপডেট না করা থাকলে এখান ক্লিক করে! আপডেট করে দিন
তার পর রিং আইডি অ্যাপ এ ঢুকে এখানে ক্লিক করেন।
Ringid Ringbit

তার পর এখানে ক্লিক করেন।
Ringid Ringbit

তার পর এখানে ক্লিক করেন।
Ringid Ringbit

তার পর এই রকম একটা box পাবেন এই box এ রিং আইডি এর প্রচার মাধ্যম এর Screen shot বা পোস্ট এর লিংক বা Youtube ভিডিও এর লিংক অথবা ভিডিও এর Screen shot জমা দিয়ে দিন।
Ringid Ringbit

রিং আইডি এর নোটিশ
যদি কোনো RingiD – ব্যবহারকারী প্রতি ১৫ দিন অন্তত একবার RingiD -তে প্রবেশ না করে, তবে তার বিনামূল্যে প্রাপ্ত রিংবিট গুলো বাজেয়াপ্ত হয়ে যাবে। এখন বর্তমান ক্যাশ আউট অপশনটি বন্ধ আছে কভিড-১৯ এর কারনে এবং আগামি ৫ আগস্ট ২০২০ এ ক্যাশ আউট অপশনটি চালু হবে আশা করা যাই।
রেফার কোড দিয়ে নতুন একাউন্ট খুলে ৫০ টাকা বোনাস আর প্রতি রেফারে ২০ টাকা বোনাস কেও যদি একাউন্ট খুলেন তা হলে আমার রেফার কোর্ড দিয়ে একাউন্ট খুলতে পারেনঃ 12253725
আমরা সবাই মিলে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করি ও সাধারণ সতর্কতা অবলম্বন করি। নিয়মিত হাত ধুই (২০ সেকেন্ড ধরে), হাঁচি-কাশি দেওয়ার সময় মুখ ও নাক ঢেকে রাখি, এবং নিজের ও পরিবারের সুস্থতা নিশ্চিত করতে জনসমাগম এড়িয়ে চলুন; ঘরে থাকুন, নিরাপদে থাকুন।
ধন্যবাদ।
লেখকঃ Uzzal Mahamud
© TrickBuzz.Net 2015-2020

বর্ণ কিবোর্ড – এন্ড্রয়েড এ বাংলা লেখার নতুন দিগন্ত

0
Borno keyboard for android

আচ্ছা আপনাকে যদি জিজ্ঞেস করা হয় আপনি এখন কোন কিবোর্ড টা দিয়ে লিখছেন, তাহলে বেশিরভাগই বলবেন, রিদ্মিক নাহলে জিবোর্ড। কিন্তু কেমন হয় যদি বাংলাদেশেরই একটা কিবোর্ডে রিদ্মিক এর মতো ফাংশন আর জিবোর্ড এর মতো UI পান?
Borno keyboard for android

যারা এখনো বর্ণ কিবোর্ড এর নাম শুনেন নাই, তাদেরকে নতুন একটি বাংলা কিবোর্ড এর সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়ায় জন্যই আজকের এই পোস্ট।
📋📋📋 বর্ণ কিবোর্ড এর কিছু ফিচারসমূহ 📋📋📋
১. ৬ টা লে আউট
বর্ণ তে রয়েছে ফোনেটিক/অভ্র, প্রভাত, জাতীয় এর মতো জনপ্রিয় লে আউটের পাশাপাশি সবমিলিয়ে ছয়টি লে আউট।
২. মার্জিত ডিকশনারী
বাংলায় লেখার জন্য মার্জিত ডিকশনারী পাবেন, যার মাধ্যমে আপনার টাইপ করা লেখা অনুযায়ী সাজেশন দিবে।
৩. পৃথক টপবার
জিবোর্ড এর টপবার এর সাথে অনেকেই পরিচিত আছেন। বর্ণ তেও আছে একটা ফাংশনাল টপবার, যার মাধ্যমে আপনি সিলেক্ট, কাট, কপির মতো গুরুত্বপূর্ণ কাজ গুলো করতে পারবেন খুব সহজেই।
Borno keyboard for android

৪. স্পেস সোয়াইপ
জিবোর্ড ইউজ করে যারা অভ্যস্ত তারা এই ফিচারটি সম্পর্কে আগে থেকেই পরিচিত । স্পেস কি তে সুইপ করলে কার্সর চেঞ্জ করা যায়। বর্ণ তেও রয়েছে এই ফিচারটি।
Borno keyboard for android

৫. কাস্টমাইজেশন এর সুবিধা
বর্ণ তে এন্ডয়েডের ডিফল্ট ও ম্যাটেরিয়াল থিমের পাশাপাশি বিভিন্ন কালার ও গ্রেডিয়েন্ট এবং ল্যান্ডস্কেপ থিম রয়েছে। এগুলোর বাটন স্টাইল, ফন্ট স্টাইল, ফন্ট কালার চেঞ্জ করতে পারবেন।
Borno keyboard for android

৬. ইমোজি ১২.১
বর্ণ তে ইমোজি ১২.১ ব্যবহার করা হয়েছে। এর ফলে আপনি লেটেস্ট সব ইমোজি ব্যবহার করতে পারবেন এই কিবোর্ডে।
৭. ফাস্ট ভয়েস রেকগনেশন
আমরা অনেকেই লেখার পরিবর্তে মুখে বলি, সেটা অটোমেটিক টাইপ হয়ে যায়। এই সুবিধা টি আপনারা বর্ণ কিবোর্ড এ পাবেন। বর্ণ তে বাংলা ভয়েজ রিকোগনাইজেশন খুবই ফাস্ট এবং একুরেট। তবে এই ফিচারটি ইউজ করার জন্য আপনার ফোনে গুগল অ্যাপ টি ইন্সটল থাকতে হবে এবং ডাটা আনরেস্টিক্টেড থাকতে হবে।
৮. জেসচার টাইপিং
বর্ণ তে আপনি জেসচার এর মাধ্যমে সুইপ করে করে টাইপ করতে পারবেন। তবে এটা শুধু মাত্র AOSP রোম এ কাজ করবে এবং Gapps ইন্সটল থাকতে হবে। বিভিন্ন ভেন্ডর রোম যেমন MIUI, realmeOS, colorOS এ এটা কাজ করবে না।
৯. লাইটওয়েট এবং ক্লিন
বর্ণ কিবোর্ড এর সাইজ ১০ এম্বির ও কম আর এর UI টা পারসোনালি আমার অনেক ভালো লেগেছে আর মোটেও কনফিউজিং না।
❇️ ❇️ ❇️ কেন ইউজ করবেন বর্ণ কীবোর্ড? ❇️ ❇️ ❇️
১. রিদ্মিক এর পরে বাংলাদেশে ডেভেলপ করা দ্বিতীয় বাংলা কিবোর্ড। বাংলাদেশের তৈরি বাংলা লেখার জন্য এতো সুন্দর একটি কিবোর্ড থাকতে আমরা কেন জিবোর্ড, সুইফট কিবোর্ড বা ইন্ডিয়ান কোন কিবোর্ড ইউজ করবো?
২. কিবোর্ড খুব সেন্সিটিভ একটা অ্যাপ, তাই এক্ষেত্রে যেটা সবার প্রথমে মাথায় আসে, সেটা হলো প্রাইভেসি। বর্ণ কিবোর্ড কোন নেট পারমিশন নেয় না। তাই আপনার ডাটা শেয়ার হবার কোন ভয় নেই।
৩. বর্ণ কিবোর্ড এর যিনি ডেভেলপার তিনি প্রত্যেকটা ইউজার এর মন্তব্য খুবই গুরুত্ব সহকারে দেখেন এবং সেগুলো সলভ ও করেন, যার প্রমাণ শেষের দুইটা আপডেট এর চেঞ্জগুলো দেখলেই আপনি বুঝতে পারবেন। কিবোর্ড এর মাত্র তৃতীয় বেটা ভার্শন রিলিজ হয়েছে, কিন্তু এখনই এটা ডেইলি ইউজের জন্য স্ট্যাবল এবং ফিচারপ্যাকড একটি কিবোর্ড।
৪. বর্ণ কিবোর্ড টা প্রতিনিয়ত আপডেট করা হচ্ছে এবং নতুন নতুন ফিচার অ্যাড করা হচ্ছে। পরবর্তী আপডেট এ দুটি পৃথক এডিশন এক্সটেন্ডেড এবং লাইট, ক্লিপ বোর্ড ফিচার, অ্যারাবিক লেআউট, স্মার্ট কারেকশন (ফনেটক), ইমোজি স্টাইল(টুইটার, আইওএস, নোটো অথবা সিস্টেম ডিফল্ট) পছন্দ করার অপশন, যা টাইপ করা হয়েছে সেগুলো সাজেশন বারে দেখানো সহ আরো বেশ কিছু ফিচার অ্যাড করা হবে।
⛔⛔⛔ কিছু অসুবিধা ⛔⛔⛔
১. প্রথমত, কিবোর্ড টা আপনি এখনই প্লে স্টোরে পাবেন না। এখন কিবোর্ড টা ইউজ করার জন্য আপনাকে থার্ড পার্টি ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করে সেটাপ করে নিতে হবে। তবে ডেভেলপার এর কথা অনুযায়ী, ফিচারগুলো ইম্প্লিমেন্ট এবং বাগগুলো ফিক্স করা হলেই খুব শীঘ্রই প্লে স্টোর এ পেয়ে যাবেন।
২. যেহেতু এটা বেটা ভার্শন, তাই কিবোর্ড টিতে বেশ কিছু বাগ ফেস করবেন। আপনার উচিৎ হবে কিবোর্ড টা ইউজ করে বাগ গুলো বর্ণ এর অফিসিয়াল ফেইসবুক গ্রুপ বা টেলিগ্রাম গ্রুপে রিপোর্ট করবেন।
🔗🔗🔗 গুরুত্বপূর্ণ লিংক 🔗🔗🔗
ডাউনলোড লিংক: Codepotro Official Website
ফেইসবুক গ্রুপ: Borno Users Community
টেলিগ্রাম গ্রুপ: Official Telegram Group
© Nayeem
© TrickBuzz.Net 2015-2020

বাঙ্গালী যদি অস্কার দিতে পারতো তবে যেসব সিনেমাকে অস্কার দিতো

0
Oscars

বাঙ্গালী যদি অস্কার দিতে পারতো তবে যেসব সিনেমাকে অস্কার দিতো – 
১। চার্লি – ভাইয়া এই সিনেমাকে গালি বয়ের মত সব ডিপার্টমেন্টে অস্কার দিয়ে দিত। যদি অস্কার বাংলাদেশী কোনো এওয়ার্ড হতো। এটি দুনিয়ায় বানানো সেরা সিনেমা। এটাকে জাতীয় পুরষ্কার ও দেওয়া হয়নি দেখে আমি তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। অস্কার কিন্ত পাওয়া উচিৎ সিনেমাটার। এটার জনপ্রিয়তা কত বাঙ্গালীরা প্রতিনিয়ত রিভিউ দিয়ে প্রমান করেছে। 
২। রাটসাসান- ভাইয়া কিসের Shutter Island, কিসের Seven, কিসের Silence Of The Lambs, The Usual Suspects অনলি Ratsasan রিয়েল। এর চেয়ে সেরা সাইকো থ্রিলার বাংলাদেশীদের মতে পুরো দুনিয়াতেই হয়নি। আইকনিক ফিল্ম দাদো। 
৩। Mucize – হ্যা ভাইয়া আপনি যদি এই ডায়লগের স্ক্রিনশট জীবনে না দেখে থাকেন “আমি আমার বউয়ের প্রেমে পড়েছি” তাহলে আমি শিওর আপনি হয় মুভি লাভার না, নতুবা আপনি কয়েকবছর কোমায় থেকে এখন উঠে এসেছেন 🤐
বাঙ্গালীদের মতে এটি অস্কার না পাওয়া রীতিমতো একটি দূর্নীতি। 
৪। All Films Of Christopher Nolan হ্যা ভাইয়া। বাঙ্গালীদের যদি ক্ষমতাটা দেওয়া হতো প্রতিটি আই রিপিট প্রতিটি নোলানের ফিল্ম অনেক গুলো করে অস্কার পাইতো। অস্কার কমিটি চিটিংবাজ বলে নোলান কে বঞ্চিত করা হয়েছে। কারন আমরা বাঙ্গালীরা তো জানি নোলান পুরো গ্যালাক্সির সর্বকালের সেরা ডিরেক্টর 🙄
So তাকে ৮-১০ টা অস্কার না দেওয়াটাও এক ধরনের দূর্নীতি। 
৫। লিওনার্দো ডি ক্যাপ্রিও – অনেক বাঙ্গালীর কাছে হলিউডের সর্বকালের সেরা অভিনেতা। তাকে ১ টা অস্কার না দিলেই না দিলেই নয় বলে দিয়েছে। নিঃসন্দেহে সে ড্যানিয়েল ডে লুইস থেকে বেশি অস্কার ডিজার্ভ করে। 
এই খাতায় যোগ হতে পারে ক্রিস্টিয়ান বেলের নাম। কারন সে অনেক ওজন বাড়ায় কমায় 🙄
আমাদের বাঙ্গালীদের এই আবেগ গুলো আর আমাদের ফিল্ম সেন্স গুলো যদি বিশ্বের বাকি লোকেদের থাকতো তাহলে আজ এমন হতো না। 
Shame On Whole Cinema World 🙏
Justice For Them ❤
(ইহা একটি কোয়ারেন্টাইন বিনোদন পোস্ট, সিরিয়াসলি না নিলে খুশি হবো)
© সংরক্ষিত
© TrickBuzz.Net 2015-2020

কিভাবে ফেসবুক কনভারসেশন পিডিএফ এ কনভার্ট করতে হয়

0
Fb msg to pdf convert

হোক কোনো অফিশিয়াল কনভারসেশন কিংবা পার্সোনাল কনভারসেশন অনেক সময়ই আমাদের ফেসবুক মেসেঞ্জার এর কোনো কনভারসেশন ব্যাকআপ রাখার প্রয়োজন হয়। তো এই আর্টিকেল এ আমি কিভাবে ফেসবুক মেসেঞ্জার এর কনভারসেশন অফলাইনে ব্যাকআপ রাখা যায় সে বিষয়ে আলোচনা করবো। এই একটি কাজ করার জন্য আমি দুটি আলাদা আলাদা পদ্ধতি আলোচনা করবো। 1. পিডিএফ এ কনভার্ট , 2. কনভারসেশন ডাউনলোড। তো দুটি পদ্ধতি সম্পর্কেই বিস্তারিত জানতে ঝাঁপিয়ে পড়ুন পুরো আর্টিকেল পড়ার জন্য।
পিডিএফ এ কনভার্ট করুন
কনভারসেশন পিডিএফ এ কনভার্ট করার জন্য আমাদের একটি ওয়েব টু পিডিএফ অ্যাপ লাগবে। প্লেস্টোর এ যতগুলো ওয়েব টু পিডিএফ অ্যাপ আছে তার মধ্যে মাত্র একটি অ্যাপ এই কাজ করতে সক্ষম। অ্যাপটির সাইজ মাত্র চার মেগাবাইট। এই লিংকে গিয়ে প্রথমেই অ্যাপটি ইনস্টল করুন। ইনস্টল করা হলে অ্যাপটি ওপেন করে একটি এড্রেস বার দেখতে পাবেন। অ্যাড্রেস বারে facebook.com লিখে এন্টার করে ফেসবুক এ লগইন করুন।
Export Facebook messages to PDF

লগইন করার পর উপরের নেভিগেশন মেনু থেকে মেসেজ ট্যাবে প্রবেশ করুন। 
Download Facebook messages

ম্যাসেজ ট্যাব থেকে আপনি যে কনভারসেশন পিডিএফ এ কনভার্ট করতে চান সেই কনভারসেশন ওপেন করুন। কনভারসেশন ওপেন হলে উপরের দিকে স্ক্রল করে দেখুন সেখানে “see older messages” নামে একটি অপশন আছে। সেখানে ক্লিক করলে আপনাদের কনভারসেশন এর পুরাতন মেসেজগুলো দেখাবে। এই লিংকে ক্লিক করতে করতে যতক্ষন না কনভারসেশন এর সব মেসেজ ওপেন হয় ততক্ষণ ক্লিক করতেই থাকুন।
Convert Facebook post to PDF

সবগুলো মেসেজ লোড করা হলে এবার অ্যাপ এর নিচে নেভিগেশন বারে দেখুন একটি ডাউনলোড আইকন আছে সেখানে ক্লিক করুন। তাহলেই কনভারসেশন পিডিএফ এ কনভার্ট হয়ে পিডিএফ হিসেবে সেভ হয়ে যাবে।
Facebook PDF download

এবার আপনার স্টোরেজে এ গিয়ে ডাউনলোড ফোল্ডারে দেখুন সেখানে “web_to_pdf” নামে একটি ফোল্ডার তৈরি হয়েছে। এই ফোল্ডারের ভিতরে দেখুন আপনি যার সাথের কনভারসেশন পিডিএফ হিসেবে ডাউনলোড করেছেন তার নাম.pdf নামে একটি পিডিএফ ফাইল আছে। এটাই আপনার সেভ করা পিডিএফ ফাইল।
Turn Facebook messages into a book

বিঃদ্রঃ এই অ্যাপটির ব্রাউজার অনেক পুরাতন তাই মাঝে মাঝেই নিচের স্কিনশট এর মতো একটি এরোর আসতে পারে। যখনই এরকম আসবে জাস্ট ব্যাক বাটন ক্লিক করবেন তাহলেই ঠিক হয়ে যাবে।
Facebook chat history Manager

এছাড়াও এই অ্যাপ দিয়ে একই ভাবে অন্য যে কোনো ওয়েবপেজ পিডিএফ এ কনভার্ট করতে পারবেন।
কনভারসেশন ডাউনলোড করুন
কনভারসেশন ডাউনলোড করার জন্য আমরা কনভারসেশন এর পেজটাই ডাউনলোড করে নেবো। তো কনভারসেশন ডাউনলোড করার জন্য প্রথমেই ক্রোম ব্রাউজার ওপেন করে ফেসবুক এ প্রবেশ করুন। প্রবেশ করার পর উপরের নেভিগেশন মেনু থেকে মেসেজ ট্যাবে প্রবেশ করুন।
can i download a facebook messenger conversation?

ম্যাসেজ ট্যাব থেকে আপনি যে কনভারসেশন ডাউনলোড করতে চান সেই কনভারসেশন ওপেন করুন। কনভারসেশন ওপেন হলে উপরের দিকে স্ক্রল করে দেখুন সেখানে “see older messages” নামে একটি অপশন আছে। এখানে ক্লিক করলে আপনাদের কনভারসেশন এর পুরাতন মেসেজগুলো দেখাবে। এই লিংকে ক্লিক করতে করতে যতক্ষন না কনভারসেশন এর সব মেসেজ ওপেন হয় ততক্ষণ ক্লিক করতেই থাকুন।
Export Facebook messages to PDF

সবগুলো মেসেজ লোড হলে এবার ডাউনলোড করার পালা। ডাউনলোড করার জন্য প্রথম ক্রোম ব্রাউজারের টপ রাইট কর্নারে থাকা থ্রি ডট মেনুতে ক্লিক করুন।
Convert Facebook post to PDF

থ্রি ডট মেনুতে ক্লিক করার পর যে মেনু ওপেন হবে সেখান থেকে ডাউনলোড আইকন এ ক্লিক করুন তাহলেই পুরো পেজ ডাউনলোড হবে।
Turn Facebook messages into a book

ডাউনলোড কমপ্লিট হলে এবার আপনার ফাইল ব্রাউজার ওপেন করে ডাউনলোড ফোল্ডার ওপেন করে দেখুন সেখানে আপনার ডাউনলোড করা ফাইলটি .mhtml ফরম্যাটে আছে। পরবর্তীতে এই ফাইলটি আবারও অ্যাকসেস করার জন্য ফাইল ম্যানেজার থেকে ফাইলটির উপর ক্লিক করে রিডার অ্যাপ হিসেবে ক্রোম ব্রাউজার সিলেক্ট করতে হবে। এখন আপনি এই ফাইলটি অনলাইনে অথবা অফলাইনে সংরক্ষণ করে রাখতে পারবেন।
Facebook chat history Manager

তো বন্ধুরা এই ছিলো আজকের আর্টিকেল। আশা করি আপনাদের কাজে আসবে। আর্টিকেল টি ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করবেন। যাওয়ার আগে আমাদের সাইটের fb.com/TrickJal ফেসবুক পেজে লাইক দিতে ভুলবেন না, ধন্যবাদ।
লেখকঃ Sakhawat
© TrickBuzz.Net 2015-2020

উইন্ডোজ কমান্ড প্রম্পট এ টেক্সট কপি পেস্ট করবেন যেভাবে

0
windows cmd prompt

উইন্ডোজ এর যে কপি পেস্ট অপশন আছে সেটা আমাদের টেক্সট ট্রান্সফার অনেক সহজতর করেছে। এই কপি পেস্ট অপশন উইন্ডোজ এ ইউজ করা আসলেই অনেক সহজ। সিলেক্টেড টেক্সট কপি করার জন্য আপনাকে জাস্ট Ctrl+C চাপতে হয় আবার কপি করা টেক্সট পেস্ট করার জন্য Ctrl+V চাপতে হয়। কিন্তু সমস্যা টা দাড়ায় তখনই যখন আপনি কমান্ড প্রম্পট এ কাজ করার সময় কপি করে রাখা কোনো টেক্সট পেস্ট করে দিয়ে কমান্ড দিতে যান। কেননা কমান্ড প্রম্পট এ ডিফল্ট ভাবে টেক্সট কপি পেস্ট করা যায় না।
 
যেহেতু কপি পেস্ট করা যায় না তাই ইউজারদের প্রতিটি কমান্ড ম্যানুয়ালি টাইপ করতে হয়। আবার কিছু কিছু কমান্ড লাইন এত বড় যে সেগুলো টাইপ করা আসলেই বিরক্তিকর। আবার কমান্ড প্রম্পট এ কোনো কমান্ড এর স্পেলিং মিসটেক হলে অনেক বড় সমস্যা হতে পারে। এখন আপনি যদি কপি পেস্ট করতে পারতেন তাহলে অনলাইনে কোনো আর্টিকেল।দেখে কাজ করার সময় সরাসরি কমান্ডগুলো কপি পেস্ট করে কাজ করতে পারতেন তাই না? তো আজকের আর্টিকেল পড়ার পর আপনি কোনো ঝামেলা ছাড়াই কপি পেস্ট করতে পারবেন।
 
 
তো আজকের আর্টিকেল এ কমান্ড প্রম্পট এ কপি পেস্ট এনাবল করার জন্য যে মেথড দেখাবো সেটা উইন্ডোজ এর সকল ভার্সনে একই ভাবে কাজ করবে। তো কপি পেস্ট এনাবল করার জন্য নিচের স্টেপগুলো ফলো করুন।
 
স্টেপ ১: প্রথমেই উইন্ডোজের স্টার্ট মেনু থেকে কমান্ড প্রম্পট এডমিন রান করুন। এতে করে কমান্ড প্রম্পট উইন্ডোজ এডমিন একাউন্ট থেকে ওপেন হবে।
Windows command prompt cheat sheet

স্টেপ ২: এবার কমান্ড প্রম্পট এর টাইটেল বার এ মাউসের রাইট বাটন ক্লিক করে ‘Properties’ অপশন এ ক্লিক করুন।
Windows command prompt list files

স্টেপ ৩: ‘Properties’ এ প্রবেশ করার পর সেখানে ‘Options‘ (কিছু কিছু ডিভাইসে এই ট্যাব ‘Experimental’ নামে থাকে) ট্যাবে প্রবেশ করুন।
Command Prompt Windows 7

স্টেপ ৪: অপশন ট্যাবে  ‘Enable CTRL key shortcuts’ অপশন এর পাশে থাকা চেকবক্স টি চেক করে দিন। চেক করে দেওয়ার পর সেটিংস সেভ করার জন্য জাস্ট OK বাটনটিতে ক্লিক করুন। তাহলেই সেটিংস সেভ হয়ে যাবে। এখন থেকে আপনি কমান্ড প্রম্পট এ টেক্সট কপি পেস্ট করা সহ সকল Ctrl শর্টকাট গুলো ইউজ করতে পারবেন।
Basic CMD commands

তো এই ছিলো আজকের আর্টিকেল। যদি আপনি একজন উইন্ডোজ ইউজার হয়ে থাকেন তাহলে হয়তো এই আর্টিকেল কখনো আপনার কাজে আসবে। আর্টিকেল কেমন লাগলো সেটা কমেন্ট করে জানাবেন। এরকম টেকনোলজি বিষয়ে টিপস পেতে আমাদের সাইট Trickjal.xyz রেগুলার ভিজিট করুন।
 লেখকঃ Sakhawat
© TrickBuzz.Net 2015-2020

বায়ারের সাথে কিভাবে কমিউনিকেশন করবেন [আপডেট 2020]

0

বায়ারের সাথে কিভাবে কমিউনিকেশন করবেন? এ নিয়ে আমার কিছু নিজস্ব অভিমত। আমার প্রথম পড়াশুনা ভিত্তিক পোষ্ট এই গ্রুপে। টাইপিং এ ভুল হলে ক্ষমা দৃষ্টিতে দেখবেন অনুরধ করলাম। কোন কথাতে ভুল হলে অনুরধ করে সিনিওর ভাইয়ারাও মাফ করে দিয়ে সংশোধন করে দিবেন।

বায়ারের সাথে কথা বলার সময়  1st impression খুবি জরুরি একটা বিষয়। এর উপরেই নির্ভর করে সে আপনার সাথে ভবিষ্যতে কাজ করবে নাকি করবেনা।

বায়ার কমিউনিকেশন নিয়ে কিছু কথা

আমাদের সিনিয়র ভাইয়ারা/টপ রেটেড সেলাররা সব সময়ই বলেন যে বায়ারদেরকে কখনো sir/madam বলতে নাই।

http://www.trickbuzz.design/%e0%a6%ab%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%bf%e0%a6%b2%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%b8%e0%a6%be%e0%a6%b0-%e0%a6%86%e0%a6%87%e0%a6%a1%e0%a6%bf-%e0%a6%ad%e0%a7%87%e0%a6%b0%e0%a6%bf%e0%a6%ab/

প্রশ্নঃ কেন বায়ারকে sir/madam বলা যাবে না?
উত্তরঃ যেহেতু আমাদের বায়াররা বেশিরভাগ পশ্চিমা দেশের হয়ে থাকেন, তাই আমাদেরকেও উনাদের দৃষ্টিভঙ্গিতেই চিন্তা করতে হবে। এখানে আমরা বাঙ্গালিরা নিজেদের মধ্যে কিভাবে কথা বলি সেটা পশ্চিমাদের উপর খাটানো যাবেনা। সবচে বড় কথা খাটানো উচিত না।

পশ্চিমা দেশেগুলতে sir/madam এই শব্দগুলো “উপাধি” সরুপ। তারা এই শব্দগুলো অর্জন করতে পছন্দ করে। বেশিরভাগ কারা এই উপাধি পায় সেটা গুগলে খুজলেই পাওয়া যাবে। তাই হটাৎই কেও এইগুলো তাকে বললে, সে বিরক্ত/বিব্রত হতে পারে, ভাবতে পারে তাকে টিটকারি করা হচ্ছে।

১। বায়ার যদি ভাল এবং বন্ধু সুলভ হয়, তাহলে দেখা যাবে সে হেসে বলল, স্যার বলার দরকার নেই আমাকে, আমরাতো মিলিটারিতে নেই |

২। বায়ার যদি ভাল, কিন্তু বন্ধু সুলভ না হয়, তাহলে দেখা যাবে, সে requirements দেওয়ার পর গায়েব হয়ে যাবে, আপনার আর ম্যাসেজের উত্তর করবে না। একবারে কাজ শেষ হলে আসবে কাজ নিয়ে, পয়সা দিয়ে চলে যাবে। এরপর থেকে আপনার সাথে আর কাজ আগাবেনা।

৩। বায়ার যদি সেচরা হয়, তাহলে অবশ্যই এর ফায়দা নিবে, তখন দেখা যাবে কাজের উপর কাজ করাচ্ছে কিন্তু পয়সা দিচ্ছে না।

তাই শুরুতেই কিংবা যত্রতত্র sir/madam শব্দগুলো ব্যবহার করা যাবেনা। আমদের দেশে এইগুলো সম্মান সূচক শব্দ, তাই আমরা প্রায়ই এইগুলো ব্যবহার করি। কোন বায়ারকে সম্মান করে এইগুলো বলা হলেও তারা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ভাল চোখে দেখে না। বরং ধরে নেয় আপনি কথা বলার নিয়ম জানেন না।

ঘনিষ্ঠটার উপর নির্ভর করে পরবর্তীতে যা ইচ্ছা ডাকতে পারেন। সেক্ষেত্রে কারো কোন সমস্যা নেই।

প্রশ্নঃ বায়ারকে তাহলে কি বলে সম্বধন করবো?
উত্তরঃ বায়ারের ম্যাসেজের ধরণ দেখে তাকে সম্বধন করতে হবে।

১। বায়ার বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই প্রথম ম্যাসেজ টা লেটারের মতো করে লিখেন। যেমন,

“Hi (your username), I need a rack card design with my logo. I’ll send you text content and image. How much will it cost and when will you deliver?
regards,
Mike.”

হয়ে গেলো, তার নাম username এ যাই লিখা থাকুক না কেন, উনি যা প্রথম কমিউনিকেশনে লিখসেন সেটা বলেই ডাকা যাবে। স্যার/ম্যাডাম বলার দরকার পরবে না।

২। যদি বায়ার তার ম্যাসেজে তার নাম বলল না। যেমন,

“Hi , I need a rack card design with my logo. I’ll send you text content and image. are you available for work?”

সেক্ষেত্রে, আপনি তার username ফলো করুন, সেখানে তার নাম আছে কিনা, যদি নাম থাকে তাহলে পুরো username ধরেই সম্বধন করুন, পরবর্তী সে নিজেই তার nickname বলে দিবে, আর যদি না বলে তাহলে ওইভাবেই ডাকুন।

৩। অনেক সময় বায়ারের username তার নিজের নামে না হয়ে, company এর নামে থাকতে পারে। সেক্ষেত্রে প্রোফাইল পিকে তার নিজের ছবি থাকলে বুঝা গেলো, উনি ছেলে নাকি মেয়ে। তখন যদি সে তার মাসেজে কোন নাম না লিখে তাহলে, mister/miss বলা যাইতে পারে। তাও বলা ঠিক না বলে আমি মনে করি।

৪। যদি দেখা যায় বায়ারের username এ company এর নাম দাওয়া, প্রোফাইল পিকও দাওয়া নাই, এমনকি ম্যাসেজেও নিজের নাম উল্লেখ করে নাই, তাহলে কি করবো! সেক্ষেত্রে, আপনার রিপ্লাই এর উপর নির্ভর করবে বায়ারের নাম বের করা। যেমন,

Buyer: “Hi , I need a rack card design with my logo. I’ll send you text content and image. are you available for work?”

Me: “Hi, thank you for contact with me. Yes, I’m available. Please send your content. 🙂
Sincerely,
Sultana.”

এর পরবর্তী 1-2 রেপ্লাইতে বায়ার ১০০% নিজের নাম লিখে পাঠাবে । তো sir/madam বলার দরকার পরল না।

http://www.trickbuzz.design/%e0%a6%ab%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%bf%e0%a6%b2%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%b8%e0%a6%bf%e0%a6%82-%e0%a6%95%e0%a6%bf%e0%a6%ad%e0%a6%be%e0%a6%ac%e0%a7%87-%e0%a6%95%e0%a6%b0%e0%a6%ac/

প্রশ্নঃ যদি বায়ারই আমাকে sir/madam বলে তো কি করবো?
উত্তরঃ যদি তারা আমাদের জন্য এই শব্দ ব্যাবহার করে, সেক্ষেত্রে, আপনি প্রথমে মানা করতে পারেন যে, please don’t call me sir, I feel shy. তারপরও যদি সে বলতে থাকে তাহলে আপনিও তাকে বলতে পারেন। কারন উনি আপনাকে সম্মান দিচ্ছেন, সেক্ষেত্রে আপনিও একই। তাই বায়ার কমিউনিকেশন এর ব্যাপারটা সবসময় মাথায় রাখবেন।

বায়ার কমিউনিকেশন নিয়ে আমার যা জানা ছিল, তা শেয়ার করলাম। আশা করি নতুনদের কাজে দিবে।

সিনিয়র ভাইয়েরা আরও ভালভাবে বুঝান। তাদের বেশিরভাগ লাইভ মনযোগ দিয়ে দেখলে এবং শুনলে এই টপিকটি কমন পাবেন। উনারা আরও ভালো ভালো ট্রিক্স শেয়ার করেন। আমরা নিজেরা নিজেরা না চিন্তা করে সিনিয়র দের লাইভ/ভিডিও গুলো দেখলে অনেক সমস্যাই সমাধান হয়ে যায়। বায়ার কমিউনিকেশন নিয়ে ইউটিউবে অনেক ভিডিও আছে, সেগুলো দেখে নিজের কমিউনিকেশন লেভেল বাড়ানোর চেষ্টা করবেন।

আমি নিজে কখনো কোন বায়ারকে sir/madam বলে সম্বোধন করিনি, কখনো মাথাতেও আশেনি যে কেন তাদেরকে এগুলো বলা যাবে না, কিংবা বললে কি হবে কিংবা ট্রাই করেও দেখিনি যে বায়ার কি বলে। কারন আমি কাজ করার সময় নিজেকে উনাদের কলিগ হিসেবে, উনাদের দৃষ্টিভঙ্গিতে চিন্তা করেছি।

তাছাড়া কাজ শিখার সময় আমাদের mentor Shohagh Hossen II ভাই বলে দিয়েছিলেন যে এসব বলা যাবে না। তাই বলিনাই। এছাড়াও আমি সময় পেলেই এই গ্রপের সিনিয়র ভাইদের ভিডিও/ লাইভ দেখি, ব্লগ পোস্টগুলো গুলো পরি এবং এগুলো থেকে আমার কমিউনিকেশন স্কিল আরো বাড়াই। তাতে আমার ছোটখাটো সব সমস্যাই অটোমেটিক সমাধান হয়ে যায়।

উগ্র কথা বলে থাকলে অনুরোধ করলাম ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। বায়ার কমিউনিকেশন নিয়ে আরও কারো প্রশ্ন থাকলে অবশ্যই কমেন্ট করবেন। আমার জানার মধ্যে থাকলে, আমি জানানোর চেষ্টা করবো।

আমাদের সাইটের আর্টিকেলগুলো ভালো লাগলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না। লেটেস্ট আর্টিকেলগুলো ইমেইলে পেতে আমাদের নিউজলেটারে সাবস্ক্রাইব করুন।

© সংগৃহীত

নতুন অ্যাপসের মাধ্যমে যেকোনো ছবি থেকে লেখা কপি করুন

0
আসসালামু আলাইকুম।
আশা করছি আপনারা সবাই ভালো আছেন।
আজ আমি আপনাদের শেখাবো কিভাবে ইন্টারনেট কানেকশন ছাড়াই যেকোনো ছবি থেকে লেখা কপি করতে হয়।
ছোট টিউন বাট অনেক উপকারী। তো শুরু করা যাক।
★ প্রথমে এই অ্যাপটি ডাউনলোড করুন।
★ তারপর screenshot ফলো করুন।
Copy Text From Photo
Copy Text From Picture
Copy Text From Pdf
Photo to pdf convert
Photo to text convert
Photo ocr convert
Image to pdf
Image to tect copy
Image to pdf to text copy

তো বন্ধুরা এভাবেই খুব সহজে যেকোনো পিক থেকে লেখা কপি করতে পারবেন।
আর তাছাড়া এই অ্যাপ দিয়ে আপনি পিডিএফ ও তৈরি করতে পারবেন।
অনেকের কাছে এটা বিরক্তিকর মনে হতে পারে,তবে আমি বলবো একবার ব্যবহার করলেই বুজতে পারবেন, যে এটা অনেক সহজ।
সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন আর নিয়মিত নামাজ আদায় করবেন।
আল্লাহ হাফেজ
লেখকঃ আবির আহসান
© TrickBuzz.Net 2015-2020

Tecno Pouvoir 4 স্মার্টফোনের বাংলা রিভিউ

0
টেকনো কে আমরা দেখেছি তারা সব সময় লো বাজেটের ফোনে ভালো ডিসপ্লে এবং ক্যামেরা দেওয়ার চেষ্টা করে তো এবার তারা ভালো ডিসপ্লে এবং ক্যামেরার সাথে ইমপ্লিমেন্ট করেছে ৬,০০০ মিলিয়াম্পেরে একটি দুর্দান্ত ব্যাটারি তাও আবার লো মিড রেঞ্জে।
আর বর্তমানে বাংলাদেশের বিভিন্ন টেক গ্রুপ এ এই ফোনের নামে বেশ ভালই একটা আলোচনা চলছে লক্ষ্য করলাম, Tecno pouvoir 4 ফোনটি আমি ব্যবহার করছি বেশ কিছুদিন ধরেই বর্তমানে এই ফোনটির ভালো খারাপ দিক একেবারে আমার সামনে এসে উপস্থিত।
তো কথা না বাড়িয়ে লাইক বাটনে ক্লিক করে পড়ে ফেলুন পুরো পোস্টটি, তো চলুন শুরু করি।
Tecno Pouvoir 4

তো প্রথমে আপনারা বক্সটি আনবক্স করে পাবেন ইত্যাদি ইত্যাদি সব জিনিসপত্র আর এই ফোনটির অফিশিয়াল প্রাইস রাখা হয়েছে ১১,৯৯০ টাকা মাত্র। তাহলে চলুন এবার আলোচনা করা যাক ফোনটির ডিজাইন এবং বিল্ড কোয়ালিটি নিয়ে।
আমার কাছে এই ফোনটি ডিজাইন এযাবতকালের টেকনোর যতগুলো স্মার্টফোন বাংলাদেশের লঞ্চ হয়েছে তাদের মধ্যে সেরা মনে হয়েছে, আপনারা এই ফোনের ব্যাক সাইডে লক্ষ্য করলেই বুঝতে পারবেন ব্যাক পার্ট এ খুব সুন্দর একটি কালার টেক্সচার ব্যবহার করা হয়েছে, যা এই বাজেটের ফোনে খুব একটা লক্ষ্য করা যায় না।
tecno pouvoir 4 pro

ডিসপ্লে হিসাবে এখানে ব্যবহার করা হয়েছে ৬.৭ ইঞ্চির এইচডি প্লাস আইপিএস এলসিডি প্যানেল যার ডিসপ্লে কোয়ালিটি আমার কাছে বেশ ভাল মনে হয়েছে। বড় ডিসপ্লে হওয়ার কারণে এখানে শার্পনেস একটু ঘাটতি লক্ষ্য করেছি।
আর এই ডিসপ্লের পিপিআই ডেনসিটি হচ্ছে ২৪৬ আমি এখানে আরো একটি জিনিস লক্ষ্য করেছি ফোনটির ম্যাক্স ব্রাইটনেস অনেক ছিল বাট ডিরেক্ট সানলাইটএ এটি খুব একটা সুবিধার নয়।
tecno pouvoir 4 price in bangladesh

এবার চলুন একটু নড়েচড়ে বসি বলি এর পারফর্মেন্স সেকশনে, চিপসেট হিসেবে এখানে ব্যবহার করা হয়েছে MediaTek helio a22 আর এই প্রসেসর নিয়ে দেখলাম ফেসবুকে টেক গ্রুপে অনেকে প্রতিবাদ করছে বাট ভালো কিছু দিতে গিয়ে এখানে চিপসেট এ এসে হালকা একটু কাট করে দিয়েছে টেকনো,
তবে আমি এই ফোনে পাবজি প্লে করেছিলামএবং আমি যেমনটা আশা করেছিলাম তার থেকে অনেক ভাল রেজাল্ট পেয়েছি।
আর এই ফোনে থাকছে ৩ গিগাবাইট র্যাম এবং ৩২ গিগাবাইট ইন্টার্নাল স্তরেজ, অন্যদিকে এই ফোনটির হিটিং ইস্যু নিয়ে বলতে গেলে হ্যাঁ মোটামুটি ভালই হচ্ছিল তবে তা স্বাভাবিক ই ছিল।
tecno pouvoir 4 price in pakistan

ক্যামেরা সেকশনে এই ফোনের রিয়ার এ থাকছে কোয়াট ক্যামেরা সেটআপ যার প্রাইমারি হলো ১৩ মেগাপিক্সেলের অন্যদিকে সেকেন্ডারি ২ মেগাপিক্সেলের ডিপ সেন্সর ২ মেগা পিক্সেলের মাইক্রো এবং লাস্ট লি ০.৩ মেগা পিক্সেলের এ আই ক্যামেরা। ডেলাইটে এই ফোনের ক্যামেরা শার্পনেস ডিটেলস আমার কাছে মোটামুটি ভালো লেগেছে।
তবে ডাইনামিক রেঞ্জটা খুব একটা সুবিধার না, তবে লো লাইটে ফোনটির ক্যামেরা বেশ ভালই পারফরম্যান্স করেছিল। অন্যদিকে এই ফোনের ৮ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা দিয়ে অনেক সুন্দর সুন্দর সেলফি তোলা যায়, আর এর ক্যামেরা তে ডুয়েল সেলফি ফ্ল্যাশ ব্যবহার করা হয়েছে।
সিকিউরিটি হিসেবে এই ফোনে থাকছে rear-mounted ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর যা খুবই ফাস্ট জাস্ট আঙুলটা লাগা মাত্র ফোন আনলক হয়ে যাচ্ছিল, আর আমি লক্ষ্য করেছি টেকনোর প্রায় প্রত্যেকটি ফোনেই ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরটি অনেক ফাস্ট হয়ে থাকে।
tecno spark 4

ব্যাটারি সেকশনে এখানে ব্যবহার করা হয়েছে ৬,০০০ মিলিয়াম্পেরে একটি দানব ব্যাটারি যার ব্যাকআপ নিয়ে বলতে গেলে আমি হেবি ইউজে ফোনটি থেকে ১২ ঘণ্টার মতো ব্যাকআপ পেয়েছি। আর একদম নরমাল ইউজ এ আপনি ৩ থেকে ৪ দিনের মতো ব্যাকআপ পেয়ে যাবেন।
তো এর চার্জিং নিয়ে বলতে গেলে এখানে চার্জিং এর জন্য থাকছে মাইক্রো ইউএসবি পোর্ট এবং এর বক্সের সাথে দেয়া হয়েছে একটি ১০ ওয়ার্ডের চার্জার, আর এই ডিভাইসটির চার্জ হতে টাইম নিয়ে থাকে মোটামুটি ৩ ঘন্টার মত, কোন দিক এই ফোনটি কিন্তু বেশী মোটা-ও ছিল না আর ওজনে ও ভারী ছিলনা।
tecno pouvoir 3 plus

out-of-the-box এই ফোনে থাকছে অ্যান্ড্রয়েড ১০ আর উপরে থাকছে হাই ওএস ভার্শন ৬.১ যা খুবই ক্লিন এবং অপটিমাইজ। এই ফোনের বাম সাইডে লাল কালারের একটি বাটন ব্যবহার করা হয়েছে যেখানে কিনা গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এ সাইন করা রয়েছে।
এত কথা বলতে বলতে পোস্টটির প্রায় লাস্ট পর্যায়ে চলে এসেছি এখন আমি বলি মূলত এই ফোনটি কাদের জন্য সাজেস্টেড থাকলো। এই ফোনটির দাম ধরা হয়েছে মাত্র ১১ হাজার ৯৯০ টাকা এই রেঞ্জে বর্তমানে রিয়েলমির কিছু স্মার্টফোন রয়েছে সেগুলো মার্কেটে অনেক দামে বিক্রি হচ্ছে।
তো সে দিক থেকে চিন্তা করলে এত কম দামে এই স্মার্টফোনটি সত্যিই অসাধারণ এবং আপনি চোখ বুঝে নিতে পারেন।
tecno spark 4 price in

এই লকডাউন এর মধ্যে আপনার ফোনের টাচ ডিসপ্লে নষ্ট হয়ে বেহাল অবস্থা? RJ Shop এ পাবেন রিজনাবল প্রাইসে যে কোন ফোনের টাচ ডিসপ্লে তাও আবার হোম ডেলিভারি যোগাযোগঃ ০১৭৭১৭৬৮১১৪
আজকের মতো এই পর্যন্তই দেখা হচ্ছে আবারও নতুন কোন পোস্টে সবার সঙ্গে আল্লাহ হাফেজ।
 লেখকঃ Ratul Ahmed
© TrickBuzz.Net 2015-2020

যে নাম্বারে বিকাশ একাউন্ট নেই সে নাম্বারে সেন্ড মানি করে ১৫ টাকা বোনাস নিন

0
Bkash send money 15 taka bonus

এখন থেকে বিকাশ একাউন্ট নেই এমন নাম্বারেও সেন্ড মানি করতে পারবেন নিশ্চিন্তে। প্রাপক ৭২ ঘন্টার মধ্যে বিকাশ অ্যাপ থেকে বা ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন পয়েন্ট থেকে একাউন্ট খুলে লগ ইন করলেই পেয়ে যাবেন ২৫ টাকা বোনাস! আর যে সেন্ড মানি করছে সে পাবে ১৫ টাকা বোনাস।
অফার এর সময়সীমা: ১ জুলাই, ২০২০ থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ পর্যন্ত
অফারের বিস্তারিত বর্ননাঃ
★ বিকাশ একাউন্ট নেই এমন নাম্বারে টাকা পাঠানো যাবে কোনো চার্জ ছাড়াই;
★ যে নাম্বারে সেন্ড মানি করা হবে সেই নাম্বার থেকে ৭২ ঘন্টার মধ্যে বিকাশ অ্যাপ থেকে অথবা ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন পয়েন্ট থেকে সফলভাবে বিকাশ একাউন্ট খোলা হলেই, সেন্ডার পেয়ে যাবেন ১৫ টাকা বোনাস; 
★ যে নাম্বারে সেন্ড মানি করা হবে সেই নাম্বার থেকে ৭২ ঘন্টার মধ্যে বিকাশ অ্যাপ থেকে অথবা ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন পয়েন্ট থেকে সফলভাবে বিকাশ একাউন্ট না খুলে তা হলে সেন্ডার তার টাকা ব্যাক পেয়ে যাবে।
★ বিকাশ অ্যাপ থেকে অথবা *247# ডায়াল করে সেন্ড মানি করলে অফারটি পাওয়া যাবে।
★ বিকাশ নেই এমন নাম্বারগুলোতে যতবার প্রয়োজন ততবারই সেন্ড মানি করা যাবে; তবে সেন্ডার প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৫১০ টাকা ক্যাশব্যাক পাবেন।
★ সেন্ডার প্রতিদিনের ক্যাশব্যাকের পরিমাণ একসাথে পাবেন। উদাহারণ: যদি একদিনে ৫ বার সফলভাবে বিকাশ একাউন্ট নেই এমন নাম্বারে সেন্ড মানি করেন, তাহলে ঐ দিনের পর থেকে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে সেন্ডার একসাথে ৭৫ টাকা (১৫টাকা x ৫) বোনাস পাবেন।
লেখকঃ Uzzal Mahamud
© TrickBuzz.Net 2015-2020

ফাইভার গিগ এডিট নিয়ে বিস্তারিত কথাবার্তা

0
Fiverr gig edit 2020

ফাইভারে গিগ র্যাংক করার পরে কিছু অর্ডার পেলে আমাদের মন চায় প্রাইসটা একটু বাড়িয়ে দেই!
ফাইভারে বায়ার দের নক না পেলেও মন চায় গিগটা একটু এডিট করি।
গিগ এডিট নিয়ে রয়েছে অনেকের নানা রকমের কনফিউশন।কেউ বলে গিগ এডিট করলে র্যাংক চলে যায়, তো কেউ বলে গিগ এডিট করলে ফল গিগ র্যাংকে আসে।
এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে একান্তই আমার ব্যক্তিগত কিছু এক্সপেরিমেন্ট এর উপর ভিত্তি করে আমার অভিজ্ঞতা শেয়ার করার চেষ্টা করলাম। ভুল ত্রূটি ক্ষমা করবেন।
গিগ এডিট ব্যাপার টা ততটাই সহজ যতটা কঠিন আমরা ভাবি।আপনার র্যাংক গিগটা কখন ফল করে? একটু ডিটেইলসে বলার চেষ্টা করি, ধরুন আপনার গিগ এমন একটা টার্মে র্যাংকড আপনি ঠিক সেই টার্মটা এডিট করলেন। ধরে নেই আপনার গিগ কোন একটা স্পেসিফিক কীওয়ার্ডে র্যাংক করে ফার্স্ট পেইজে আছে। সো আপনি যদি এখন গিগ টাইটেল থেকে সেই কীওয়ার্ড মুছে ফেলেন আপনার গীগ ফল করবে। আবার ধরুন আপনি ডেসক্রি‍পশন বক্স এডিট করেছেন এবং সেইখান থেকেও আনফরচুনেটলি এমন কিছু নড়াচড়া করলেন যেই টার্মে আপনার গিগ র্যাংকড ছিলো তাহলেও গিগ ফল করবে।
আবার ধরুন আপনার ফল গিগ এডিট করছেন, রিসার্চ করে, স্টাডি করে মেটাফোর কিছু কিওয়ার্ড ফোকাস করে সেইভাবে টাইটেল দিছেন সাথে ইউনিক এবং রেলিভেন্ট ডেসক্রিপশন লিখছেন তাহলে আপনার ফল গিগ আগের থেকে ভালো অবস্থানে আসবে।
এখন কথা হচ্ছে আপনি গিগে যদি প্রাইস এড করেন তখন ব্যাপার টা কি হবে? ধরুন আপনার বেসিক প্রাইস আছে 10$ আপনি সপ্তাহে গিগে নক পান ১০টা। যখনই আপনি বেসিক প্রাইস টা 50$ করে দিবেন আপনার গিগে নক কমে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। কারণ আপনি ইচ্ছা করেই 10$ এর বাজেটের বায়ার দের ফিল্টারিং করে দিছেন। কিন্তু আপনি যেই নক গুলা এখন পাবেন সেইগুলার পটেনশিয়ালিটি আগের বায়ারের থেকে বেশি থাকবে কারণ আপনার বেসিক প্রাইস 50$ দেখেই সে আপনাকে নক দিছে।
এখন পয়েন্ট হচ্ছে আপনি কখন গিগে হাত দিবেন এডিট করার জন্যে?
সাপোস আপনার কিউ তে ৩-৫ টা অর্ডার আছে। আপনি আগামি কাল ডেলিভারী দিবেন। সো আপনি আজকে গিগে হাত দিবেন, স্বভাবতই গিগে হাত দিলে ইম্প্রেশন কমে যায়, কিন্তু যখন ই আগামী কাল আপনি ৩ টা অর্ডার ডেলিভারী দিবেন তখনই আবার এই ইম্প্রেশন টা রিকভারী হয়ে যাবে।
আর একটা ব্যাপার থাকে গিগের থাম্বনেইল চেইঞ্জ এর বিষয়ে, অনেকেই প্রথম দিকে তেমন না বুঝেই একটা থাম্বনেইল দিয়ে গিগ ওপেন করে, কিছুদিন যাওয়ার পরে সেই গিগে অর্ডার কমপ্লিট হয় এবং সে বুঝতে পারে থাম্বনেইল টা সঠিক হয় নাই, সাইজ ঠিক নাই, আনপ্রফেশনাল।
সুতরাং এমন মুহূর্তে কি আমরা গিগ থাম্বনেইল চেইঞ্জ করবো? আমি সরাসরি না করবো না তবে থাম্বনেইল চেইঞ্জ করে আমি ফলাফল নেগেটিভ পাইছি। কারণ থাম্বনেইল ব্যপার টার সাথে দেখা যায় অনেক কিছু রিলেটেড অনেকেই থাম্বনেইলে অফ পেইজ SEO করে।আর অফ পেইজ SEO’র কারনে যদি গিগ র্যাংকে থাকে তখন থাম্বনেইল চেইঞ্জ করলে কিন্তু সেই গিগ মাস্ট বি ফল করবে। কারণ আপনি নতুন থাম্বনেইলে সেইম কীওয়ার্ডে অফ পেইজ SEO করলেও সাথেও সাথেও আজীবনেও আগের মতন র্যাংক পাবেন না। কারণ আপনি থাম্বনেইল ডিলেট করার সাথে সাথেই আর একজন সেই পজিশন টা নিয়ে নিছে।সুতরাং গিগ থাম্বনেইলে না যাওয়াই উত্তম আমি মনে করি।
সো অনেকগুলা ব্যাপার এই গিগ এডিট এর সাথে জড়িত।
আমি গিগ টাইটেল, ডেসক্রিপশন এডিট করে ৭৪ হাজার গিগের যেখানে আমার গিগ আমি খুজে পেতাম না এখন সেই কীওয়ার্ডে টপ-১০০ তে সেকেন্ড পেইজে গিগ দেখা যায়।
সো ইটস অল এবাউট ইয়োর ডীপ থট রিগার্ডিং ইয়োর স্কোপ।
ধন্যবাদ।
লেখকঃ সাবিদ হাসান আবির
© TrickBuzz.Net 2015-2020